1. manobchitra@gmail.com : news :
  2. manobchitra24@gmail.com : News Bd : News Bd
May 19, 2024, 8:48 am
শিরোনাম
ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে ৭৫টি রকেট ছুড়েছে লেবাননের শক্তিশালী সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ কক্সবাজারের লাল পাহাড়ে আরসার আস্তানায় র‌্যাবের অভিযান রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন সেতুমন্ত্রী শিগগিরই ফিলিস্তিনে খাদ্য সহায়তা পাঠাবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ প্রার্থিতা কেন বাতিল নয়, জানতে চেয়ে প্রতিমন্ত্রীর ভাইকে কমিশনে তলব  হুয়াওয়ের ক্লাউড সেবা ব্যবহার করবে অন্যরকম গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান উৎকর্ষ সাতক্ষীরায় র‌্যাবের অভিযানে বিদেশি পিস্তল ও দেশীয় ওয়ান সুটারগান সহ গুলি উদ্ধার হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী দীর্ঘ ২৭ বছর পলাতক থাকার পর র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার দিনাজপুরের বিরামপুরে ২৯ বিজিবি’র অভিযানে বিপুল পরিমাণ কোকেন আটক গাজীপুরে এনএসআই পরিচয়ের ৬ জন ভূয়া সদস্য গ্রেফতার

দুই বছর শ্রম এবং নগদ দুই লক্ষ টাকা দিয়েও চাকরি হলো না রাজুর!

  • আপডেট সময় Friday, October 6, 2023

নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় শেরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে দুই বছর শ্রম এবং নগদ দুই লক্ষ টাকা দিয়েও পরিচ্ছন্নকর্মী পদে চাকুরি হয়নি রাজুর। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার এমন অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা- সমালোচনার ঝড় বইছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রোজ শুক্রবার সকাল ১০ টায় শেরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ল্যাব অপারেটর, আয়া, এবং পরিচ্ছন্নকর্মী ও নৈশ প্রহরী চারটি পদে নিয়োগ পরীক্ষা এবং ভাইভা সম্পূর্ণ হয়। তবে আগেই ল্যাব অপারেটর পদে ১৯ লক্ষ টাকা এবং বাঁকী তিনটি পদে ৩৬ লক্ষ টাকা সহ মোট ৫৫ লক্ষ টাকা নেয় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান এবং ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুজন। এমন অভিযোগই তুলেছেন চাকরি না পাওয়া দুই পরিবার।

সরজমিনে চাকরি না পাওয়া দুই পরিবারের কাছে গেলে চোখ কপালে ওঠার মতো তথ্য বেরিয়ে আসে। শেরপুর গ্রামের আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমার ছেলে রাজু ইসলাম নিয়োগের আগে শেরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ বছর পরিচ্ছন্নকর্মী পদে শ্রম দিয়েছে, এবং প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান চাকরি হবে বলে দুই লক্ষ টাকাও নিয়েছে। কিন্তু আমার ছেলের চাকরি হয় নি। গত রবিবার টাকা ফেরত পাইছি। চাকরি প্রার্থী রাজু বলেন আমি ২ বছর চাকরি করছি। কেন পরিছন্ন পদে চাকরি হলো না, জানতে চাইলে বলেন ঐ পদে বেশী টাকা দিলে চাকরি হতো। আমার বাবা ২লক্ষ টাকা দিয়েছে ফেরত দিছে কি না আমার বাবা জানে। আমি এখন ইলেকট্রিশিয়ানের কাজ করছি।

আরেক চাকরি প্রার্থীর বাবা ভবন গ্রামের গৌর বলেন, প্রধান শিক্ষক মিজানুর আমার ছেলের জন্য ল্যাব পদে ১৯ লক্ষ টাকা চায়। আমি ১৫ লক্ষ পর্যন্ত দিতে চাইছিলাম। তারা ১৯ লক্ষ টাকাই নিবে। কি আর করার আমার ছেলের চাকরি হলো না।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো মিজানুর রহমানের কাছে নিয়োগ বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, আমি কি তথ্য দিতে বাধ্য আপনাদের কাছে। পরে বলেন আপনার ফোন নং দিয়ে যান বিকালে আপনার সাথে দেখা করবো। তথ্য দিবেন না নং নিয়ে কি করবেন জানতে চাইলে বলেন,সেটা আমার বিষয়।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুজনের কাছে নিয়োগ বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, নিয়োগ তো হয়ে গেছে। কয়টি পদে নিয়োগ হয়েছে। তিনি বলেন প্রধান শিক্ষক বলতে পারবেন। রাজুর বাবার কাছে নিয়োগ দিবেন বলে ২ লক্ষ টাকা নিয়েছেন, চাকরি দিবেন বলে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেটিও প্রধান শিক্ষক জানে বলে ফোন কেটে দেয়।

উপজেলা মাধ্যমিক সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল আল মামুন বলেন,নিয়োগ পরীক্ষার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম। নিয়ম মেনেই সব হয়েছে। টাকা নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণ থাকলে, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2021 ManobChitra
Theme Customized By BreakingNews